গাহি তাঁর গান,
যে দানিল জীবনের পথের সন্ধান।
আলােকের তীর ,
ভেদ করি’ অজ্ঞানের নিবিড় তিমির,
স্বর্ণোজ্জ্বল আলাে ,
প্রদীপ্ত প্রাণের দীপে যে জন জ্বালালাে,
দূর করি’ যত দ্বিধা ভয়।
জীবন -সংগ্রামে লভে জয়,
শঙ্কাহীন মুক্ত যাঁর প্রাণ,
আমি গাহি তাঁর জয় গান।

আমি তাঁর গান গাহি—-
বেদনা -সিন্ধুতে অবগাহি’
কণ্ঠে যাঁর মানুষের লাগি জাগে গান ;
মথিত অন্তর -তল,
প্লাবিত করিয়া ওঠে প্রাণ,
যাঁর চিত্তে লাগিলে সংঘাত,
অসহায় মানবের ক্ষুব্ধ আর্তনাদ শ্রবণে পশিলে,
করে স্রষ্টারে সে বলিষ্ঠ জিজ্ঞাস ,
‘শেকোয়া’র সে উদাত্ত ভাষা।
বিশ্বাসের দৃঢ় পরিচয়-
আমি গাহি তাঁরি জয় জয় ।

গাহি তাঁর গান !
রহিম রহমান ;
যাহার অন্তর ভরি রয়েছে আপনি তার বক্ষে জোগাইয়া বাণী,
শেকোয়া জওয়াবে যাঁর দিল ফরমান ।
কর্মময় জীবন-ই মানবের মহৎ মহান,
নিষ্ক্রিয় জীবনে যাঁরা চাহে উর্ধ্ব পানে।
আশায় কাটায় দিন,
বিধাতার দানে ভরিবে অঞ্জলী—-
তা’রা মঢ়, শক্তিহীন, তা’রা হয় অজ্ঞানের বলি।

হে কবি !
তােমার বক্ষে যে দিন ধ্বনিল এই ভাষা,
নয়নে নবীন স্বপ্ন,
বক্ষে নিয়ে অফুরন্ত আশা,
উঠিলে গাহিয়া—-
জীবন সংগ্রামময়,
চলাে তবু–চলাে আগাইয়া,
সম্মুখের পথ ধরি,
দুর্গমে করিয়া লও জয়,
টুটিয়া পড়িবে বাধা,
দূর করো সকল সংশয়,
গড়ো নব ‘শিবালয়’ ;
হােক কোরবান আজাদীর লাগি’ লক্ষ প্রাণ।
তুমি কবি,
তােমার সে উদাত্ত সঙ্গীত জানাইল পথের ইঙ্গিত।

গাহি আমি তাই তব গান।
ধ্বনিয়া উঠিল যবে দিকে দিকে তােমার আহ্বান, জিন্দানের টুটিল প্রাচীর গানের আঘাতে।
প্লাবি’ উঠিল নদীর দুই তীর,
কাল-স্রোতে ভেসে গেল দুস্তর যতেক ব্যবধান শুনিয়া তােমার সেই গান।
তােমার তপস্যা দিল তোমার অন্তর মাঝে ধরা, তােমার চিনিলে তুমি,
হৃদয় হইল মধুক্ষরা।
কস্তুরী হরিণ সম আপনাতে আপনি বিভাের ,
তােমার আঁখির তপ্ত-লাের,
মুছাইল এ জাতির গ্লানির বেদনা ;
তাই গাহি তোমার বন্দনা।

তােমার বন্দনা গাহি !
জাতির সৌভাগ্যস্পর্শ-মণি—–
অন্তরে আসন তুমি নিয়াছ আপনি।
এ পাক ওয়াতান ,
আমাদের করিয়াছ দান।
তােমার জীবন-স্বপ্ন সঞ্চারিতে জাতির জীবনে সাধনা করেছ প্রাণপণে।
এ জাতি ডুবিয়াছিল পরাধীনতার পাপ-কূপে।
তুমি এলে মুক্তি দাতা-রূপে,
করিয়াছ একান্ত সাধনা ;
গাহি তাই তােমার বন্দনা।

কবি:বেগম সুফিয়া কামাল [মুহাম্মদ ইকবালকে উদ্দেশ্য করে লেখা]
তথ্য সূত্র: মাহে নাও ১৯৫৬

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.