আল্লাহর উপর বিশ্বাস এবং ভরসা রাখুন।আল্লাহর রহমত প্রাপ্তিতে নিরাশ হবেন না,তাঁর দয়া ও অনুগ্রহ থেকে আশা হারাবেন না ।
একদিন রাসূল(সাঃ) এক সাহাবা’কে মসজিদে বসে থাকতে দেখলেন। তিনি তাকে প্রশ্ন করলেন, ‘কোন বিষয়টি তোমাকে এই অসময়ে মসজিদে বসিয়ে রেখেছে?’ জবাবে সাহাবা বললেন,’হে আল্লাহর রাসূল(সাঃ) ঋণের বোঝা ও দুশ্চিন্তা আমাকে দুর্বল করে ফেলেছে।’ রাসূল(সাঃ) বললেন,’আমি কি তোমাকে এমন কিছু শব্দ শিখিয়ে দেবো যেগুলো পড়লে আল্লাহ তোমার সকল দুশ্চিন্তা দূর করে দেবেন এবং তোমাকে ঋণ মুক্ত করবেন ?
এই বলে আল্লাহর রাসূল পাঠ করলেন ,’
আল্লাহুম্মা ইন্নী আ’উযুবিকা মিনাল হামনি ওয়াল হাযান,ওয়াল আজিযি ওয়াল কাসাল,ওয়াল বুখলি ওয়াল জুবনি,ওয়া দলায়িদদাইনি ওয়া গলাবাতির রিজাল।’

অর্থাৎ ‘হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে আশ্রয় চাচ্ছি দুশ্চিন্তা থেকে, অপারগতা,অলসতা, কৃপণতা এবং কাপুরুষতা থেকে। অধিক ঋণ থেকে এবং দুষ্ট লোকের প্রাধান্য থেকে।’
আল্লাহর যেই বান্দাই পূর্ণ বিশ্বাসের সাথে এই কথাগুলো বলবে আল্লাহ অবশ্যই তার জন্য স্বস্তি ও মুক্তির পথ বের করে দেবেন।
মানুষ প্রকৃতপক্ষে খুব দুর্বল।তার ওপরে একটার পর একটা দুশ্চিন্তার ঝড় বয়ে যায়। সে একটি চিন্তা থেকে বের হতে না হতেই আরেকটি চিন্তা এসে হাজির হয়।আল্লাহ বলেন,’নিশ্চয়ই আমরা মানুষকে অনেক কষ্টের মধ্যে সৃষ্টি করেছি এবং এই কষ্ট,চিন্তা দূর করতে পারেন একমাত্র সেই আল্লাহ, যিনি মানুষকে সৃষ্টি করেছেন।’

আল্লাহ আপনার কল্যাণ চেয়েছেন যখন তিনি আপনাকে কোনো বিপদ দ্বারা পরীক্ষা করেন এবং সেই বিপদে ধৈর্য ধারণের তৌফিক দান করেন।আল্লাহ আপনার কল্যাণ চেয়েছেন যখন আপনি আপনার মনকে তাঁর কাছে ফিরিয়ে স্বীয় দুঃখ,কষ্ট একান্তে তাঁর কাছে ব্যক্ত করেন। হে আল্লাহ! আপনি ছাড়া এই অসহায় বান্দাহর ডাকে কে সাড়া দেবে? আপনি তো আপনার নবীদের বিভিন্ন বিপদ থেকে রক্ষা করেছেন।আপনি আমাকেও সাহায্য করুন।

এভাবে আল্লাহর কাছে দোয়া করতে থাকুন।আল্লাহ অবশ্যই আপনার দিকে রহমতের দৃষ্টি দেবেন , তিনি অসীম দয়ালু এবং রাহমানুর রহিম ।আল্লাহকে বলুন,হে আল্লাহ!আপনি আমার অবস্থা দেখছেন,আপনি আমার দুর্বলতাও যানেন,আমার প্রয়োজনও বোঝেন।আমি আপনার কাছেই ফিরছি ,আপনার কাছেই আমার হৃদয়ানুভূতি প্রকাশ করছি ,আপনার কাছেই কষ্টগুলো জানাচ্ছি । হে আল্লাহ! আমি শুধুমাত্র আপনারই কাছে সাহায্য প্রার্থনা করছি ।

আপনি যদি এই দোয়াগুলো দিয়ে বিপদের মোকাবিলা করেন,আপনি অবশ্যই বিপদ থেকে মুক্তি পাবেন। আল্লাহ যখন আপনার কষ্ট লাঘবের সিদ্ধান্ত নিবেন,তখন আপনার বিপদ থেকে মুক্তির পথ এমনভাবে বের হয়ে যাবে যা আপনি কখনও কল্পনাও করেননি।আপনি যেনে রাখবেন যে,আল্লাহ আপনার প্রতি আপনার নিজের থেকেও বেশি দয়াবান ,একমাত্র এই বিশ্বাসটাই আপনার সকল দুশ্চিন্তা ও বিষন্নতা মুছে দেবে।এমন কে আছে, যে আল্লাহর দরজায় দাঁড়িয়েছে অথচ আল্লাহ তাকে তাঁড়িয়ে দিয়েছেন !

আল গফুর আমাদের ক্ষমা করে দিন,আস সবূর আমাদের ধৈর্য ধারণ করার তৌফিক দান করুন। আপনার উপর ভরসা রাখার তৌফিক দান করুন।
হে আল্লাহ ইহকাল ও পরকালীন জীবনে আমাদের কল্যাণ দান করুন ।
আমিন।

রিফাত আরা রাহা
হোম ইকোনমিক্স কলেজ

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.